সমকামী বিষয়ক একটি ১৮+ গল্প

ক্যাটাগরি: পুরুষের স্বাস্থ্য | তারিখ: 02/10/18 | 1 Comment

( বিঃদ্রঃ  হাইভোল্টেজের ১৮+ লেখা ,নিজ দায়িত্তে ও  সাবধানে পড়বেন ,হাসতে হাসতে অসুস্থ্য হইয়া গ্যালে আমার কোন দোষ নাই )

.

আমার জীবনে এমন একটা ঘটনা ঘটবো এইটা জিন্দেগীতেও কল্পনা করি নাই…..আইজকা আমি আমার জীবনের খুবই সেন্সেটিভ পারসোনার উউপস স্যরি পারসোনাল গোপনীয় নমনীয় স্পর্শকাতর বিষয় নিয়া না বলা কাহিনীর স্তর উন্মোচন করুম…

পল্টনে এক বড় ভাইয়ের অফিসে গেসিলাম তো বাইর হইতে হইতে প্রায় সাড়ে নয়টা বাইজা গেলো…অফিস থেকা নাইমাই দেখলাম এক বেডায় ডিমের খানদান নিয়া বইসা রইছে…নগদে গিয়া একটা হাফ বয়েলড আর একটা ফুল বয়েলড হাসের ডিম হালাল কইরা ফালাইলাম …শরীর টা গরম হওয়া শুরু করলো ….ফুর ফুর একটা ফিলিং পাওয়া শুরু করলাম …আশে পাশে কোনো রিকশা না পাইয়া শুরু করলাম হাটা প্রায় ১০০ মিটার হাটার পরে দেখলাম এক বেটায় ফুটপাতে চকি ফালাইয়া সস্তা বইয়ের দোকান খুইলা বইছে….এইসব দোকানে মাঝে মাঝে পুরাতন ভালো বই পাওন যায় তাই দোকানে উকি ঝুকি মারা শুরু করলাম…দুই একটা বই হাতে নিয়া দেখা শুরু করলাম যার মইধ্যে অনলাইনে টেকা কামানির উপায়, ঘরে বসে মাশরুম চাষ, মানুষ চেনার উপায়, তুমি জিতবেই ইত্যাদি…

হঠাৎ একটা বই চোখে পড়ল নাম হইলো গিয়া আধুনিক যৌন বিজ্ঞান ..বইটা হাতে নিতেই পাশ থেকা একজন বলল”আসলেই আধুনিক যামানায় সবকিছুতেই আধুনিক হওয়া দরকার”…আমি থোড়া থতমত খাইয়া গেলাম ..পাশে তাকাইয়া দেখি প্রায় ২৮/২৯ বয়সের একটা পোলা আমার দিকে তাকাইয়া কথা কইতাছে, আমি ব্যাক্কলের মতন তার কথার জবাবে মাথা নাড়লাম

…তো হঠাৎ মূত্র বিসর্জনের প্রয়োজন হওয়ায় পাশেই একটা বড় বিল্ডিংয়ের ভিতরে ঢুইক্যা একটা কার্পেটের দোকানদাররে জিগাইলাম যে ”ভাই টয়লেট টা কুনদিকে”…দোকানদার বাম কব্জিটা ঘুরাইয়া টয়লেটের পাতা বাতাইয়া দিলো…টয়লেটে গিয়া ঢুকলাম গিয়া দেখি তিন চাইরজন লোক সিরিয়ালে আছে, পিছে তাকাইয়া দেখি সেই ২৮/২৯ বছরের মানুষটাও আইছে …অস্বাভাবিক লাগলো না, তার দিকে তাকাইতেই একটা হাসি দিলো…মনে হইলো কি জানি বলতে চাইতেছে…ভালো কথা যেহেতু তিন চাইর জন সিরিয়ালে খারাইয়া রইছে তাই সিরিয়াল পাইতে একটু সময় লাগতেছে…এর মধ্যে পিছে তাকাইয়া দেখি ভদ্রলোক নাই….ভালো কথা এর মধ্যে সিরিয়াল পাওয়াতে আমি আমার কাম সাইরা টয়লেট থেকা বাইরা হইয়া রাস্তায় হাটা ধরছি…

১০ কদমও যাই নাই এর মধ্যে কেডায় জানি ঘাড়ে হাত রাইখ্যা কইলো ”ভাই একটু দাড়ান”

আমি খাড়াইয়া পিছে তাকাইয়া দেখি সেই ভ্দ্দরলোক আবারও আমার পিছে…বলল- ”ভাই বিরক্ত হইয়েন না একটা কথা বলি আপনাকে আমার খুব পরিচিত লোক মনে হইতেছে, আপনার দেশের বাড়ি কই”

চিন্তা করলাম গ্রামের বাড়িই তো জিগাইসে এটিএম কার্ডের পিন নাম্বার তো আর জিগায় নাই তো কইলাম গ্রামের বাড়ি বিক্রমপুর

তারপর সে শুধাইলো ”আপনের বাসা মগবাজার না”??

ব্যাক্কলের মতন কইয়া ফালাইলাম জ্বিনা ভ্রাতা আমার বাসা ধানমন্ডিতে ,  তখন কইলো যে ”ও না তাইলে তো মনে হয় আপনারে চিনি না, কিন্তু খুব চেনা চেনা লাগতেছে”

…আমি আবারো হাসি দিয়া চইলা আইতে লাগলাম…বেডায় আবার সামনে আইসা দাড়াইলো…”আইসা কইলো ভাইয়া আপনি কি জানেন যে আপনি অনেক স্মার্ট”

…আমি কইলাম ”বুঝলাম না কি বললেন”

…আবার কইলো যে ”যেকোন মডেলের চেয়ে আপনি কিন্তু কম স্মার্ট না”

…আমি কইলাম – ধইন্যবাদ

(মনে মনে একটু খুশি হইছিলাম..মনে আরেকটা আশা জাগছিলো যে বেডায় মনে হয় কোন ডিরেক্টর , আমারে হের নাটকে বা সিনেমায় নিতে চাইতাছে )

…আবারো কইলো ”একটা কথা বলি”?

আমি কইলাম ‘বলেন’

…এরপর যা শুনলাম যেইটা এক্সপেক্ট করি নাই …কইলো ভাইয়া আমি একজন সমকামি

…শুনার সাথে সাথে অটোমেটিক্যালি নিতম্বের দুটি অংশ টাইট হইয়া জোড়া লাইগা এক হইয়া যাওয়ার চেস্টা করল… কুৎ কইরা একটা ঢোক গিল্লাম..

সমকামি: আপনাকে আমার খুব ভালো লাগছে

আমি: কুৎ

সমকামি: আমি আপনার পার্টনার হইতে চাই

আমি: কুৎ কুৎ

সমকামি: আমাদের ৫/৬ জনের একটা ক্লাব আছে, ওরা সবাই খুবই ফ্রেন্ডলি আপনার ভালো লাগবে।

আমি: কুৎ কুৎ কুৎ

সমকামি: আপনি রাজি না থাকলেও কুনো সমস্যা নাই কিছু করতে হইবো না শুধু চলেন ক্লাবটা দেইখ্যা আসলেন, কিছু নতুন অভিজ্ঞতা হইলো

আমি: কুৎ কুৎ

সমকামি: আসেন ডিম খাই বইলা আমার হাত ধইরা টানতে লাগলো

বিশ্বাস করেন যখনই আমার হাত ধরলো ২২০ ভোল্টের একটা ঝাটকা খাইলাম বইলা মনে হইলো..নগদে কইলাম আমি ডিম খাই না আমি ভেজিটেরিয়ান…

সমকামি: হাঃহাঃ তাইলে তখন যে দুইটা হাসের ডিম খাইলেন ?

আমি ছাগলের মতন বড় বড় চোখ কইরা হের দিকে তাকাইয়া বড় বড় নিশ্বাস নিতে শুরু করলাম, মুখের কথা আটকাইয়া আইতে লাগলো

.. এবার কুৎ কইরা ঢোকটাও গিলতে পারলাম না, (শালার পো তখন থেকা আমার পিছে লাগছে )

সমকামি: আরে আসেন তো আপনের যে ফিগার তাতে দুইটা ডিমে কিছুই হইবো না ৪ টা খাইলে শরীরে জোড় পাইবেন ।

আমি: নাআ নাআ নাআ নাআ নাআ নাআ নাআ নাআ ভাই আমি ডিম খাবো না

সমকামি: ঠিক আছে ঠিক আছে খাইতে হবে না…তো কিসে যাবেন রিকসায় নাকি সি এন জি তে

আমি: অনেক কস্টে কুৎ কইরা ঢো ক গিল্লা কইলাম কই যামু??

সমকামি: কেন!! আমাদের ক্লাবে

আমি: আ আ আমমি কেন আপনাদের ক্লাবে যাবো

সমকামি: অইযে বল্লাম নতুন অভিজ্ঞতা হবে

আমি: দদ্দদরকার নাই আমার অভিজ্ঞতার

সমকামি: আহা ভাইয়া ঠিক আছে অভিজ্ঞতার দরকার না থাকুক সমকামি সম্পর্কে যে আপনার ভুল ধারনা আছে সেগুলি ভেঙ্গে যাবে

আমি: আমার কোনো ধারনারই দরকার নাই

সমকামি: ভাইয়া আমার সঙ্গ পেলে আর কখনই কোনো নারীর সঙ্গ চাইবেন না, আমি মেয়েদের চেয়েও ভালো ফোরপ্লে করতে জানি, আমরা সবাই প্রটেকশন ইউজ করি, লুব্রিকেন্ট ইউজ করি …জানেন নিশ্চই ডিমের সাদা অংশ খুব ভালো লুব্রিকেন্ট

. . আমার কেমন জানি বমি বমি লাগা শুরু করলো, মাথা ঘুরানি আরম্ভ করলো, শরীর ঝিম ঝিম করতে শুরু করলো

সমকামি: কি ভাইয়া যাবেন না?? আমি আপনাকে রাতের বেলায় আপনার বাসায় ড্রপ করবো

আমি: ভাইয়া আপনি যেরকম ভাবছেন আমিতো আসলে অইরকম না ( অনেক কস্টে )

সমকামি: হাঃ হাঃ ঠিক আছে তাহলে আপনার মোবাইল নম্বরটা আমাকে দিন আর আমারটা রাখুন যদি কখনো আপনার রুচি বদল হয় তো আপনি আমাদের সাথে যোগাযোগ করলেন ,

আমি কইতে যামু যে আমার মোবাইল নাই এর মধ্যেই আমার মোবাইল বাইজ্যা উঠলো

…ফোনটা কাইট্যা চি চি কইরা কইলাম যে ভাইয়া আমি জানি আমার রুচি কখনই বদলাবে না তাই নম্বরটা দিতে চাচ্ছি না

সমকামি: তাহলে আপনার পরিচিত যে দেখতে আপনার মতন অথবা এইসব বিষয়ে আগ্রহ আছে তার কোনো নম্বর দিন

আমি: নাআ নাআ ভাই এরকম কাউকে আমি চিনি না

সমকামি: আপনার একটা ছবি তুলি

আমি: নাআ নাআ প্লিজ

সমকামি: সবকিছুতেই না না করছেন , তাহলে একটা কথা বলে রাখি আজকে আপনার কথা চিন্তা করে আমি স্বমেহন করব সেটা না করবেন কি ভাবে

আমি: কুৎ

ঠিক তখনই একটা বাস আইস্যা থামলো আমার সামনে আমি কোনো মতে কইলাম ভাই আমার বাস আইস্যা পরছে কইয়া দিলাম দৌড় বাসের সামনে গিয়া দেখি ৮/৯ জন বাসে উঠার লইগ্যা ঠেলাঠেলি করতাছে…ক্যামনে ক্যামনে যে কাউরে পারা দিয়া কারো ঘাড়ের উপড়ে দিয়া লাফাইয়া বাসে উঠলাম অইটা একটা মিরাকল…বাসে উইঠ্যা দেখি জন্মের ভিড়

…কানে খালি একটা কথাই বারেবারে বাজতাছে ”সবকিছুতেই না না করছেন তাহলে একটা কথা বলে রাখি আজকে আপনার কথা চিন্তা করে আমি স্বমেহন করব সেটা না করবেন কি ভাবে”

নগদে আমার আশেপাশের সবার দিকে চোখ দিলাম, কাউরে বিশ্বাস হইতাছে না…নিতম্বটারে কোনমতে গিয়া বাসের দেয়ালে ঠেকাইয়া ধইর্যা খাড়াইলাম..মনে খালি এটুকুই আশা যে এই বাসের দেয়াল কমপক্ষে আমার লগে বেঈমানি করবো না….

কোনো মতে বাসায় গিয়া পৌছাইলাম….বাসায় ঢুইকাই নগদে গোসল দিলাম, পানি ঠান্ডা কি গরম অইটা দেখার অবস্হা আসিলো না….তারপর খাটে বইস্যা আধঘন্টা ঝিম ধইর্যা বইস্যা চিন্তা করলাম কি হইলো এইডা . ….আমার উনারে কল দিয়া সব কইলাম…..আপন মানুষ যদি কথা শ্যাস করতে না দিয়াই হাসতে হাসতে দম বন্ধ কইরা ফালায় তাইলে কার কাছে যামু??

দেড় ঘন্টা ধইরা খালি হাসতেই ছিলো….এক লাইন কাহিনী শুনে তিন লাইন হাসে…. . সব দুঃখ কোনো মতে ভুলছি…আম্মা ডাক দিলো ভাত খাওনের লাইগ্যা ….ভাত খাইত্যে বসলাম…প্লেটে ভাত নিসি দেখি আম্মা দেখি প্লেটে ভুনা ডিম বাইরা দিলো….আমার কানে বাইজা উঠলো “জানেন নিশ্চই ডিমের সাদা অংশ খুব ভালো লুব্রিকেন্ট ”

ভাত খামু না কইয়া নগদে বাথরুম আইসা বমি কইরা পল্টনে খাওয়া হাফ বয়েলড আর ফুল বয়েলড ডিম দুইটা বাইর করার চেস্টা করতে থাকলাম কতদিন যে ডিম খাইতে পারুম না কে জানে ওয়াক !!

 

## বাংলা সিনেমার নায়িকারা রাস্তা দিয়া বাচাও বাচাও কইয়া দৌড় দেয় দেইখ্যা জিবনে খেক খেক কইরা কত হাসছি….এই পোস্টে প্রমিস কইরা গেলাম আর জীবনে হাসুম না নায়িকাগো দেইখ্যা…অগো দুঃখটা আইজকা বুঝলাম

## যদি লোকটা কইত্য যে ভাই আমি একজন ভ্যাম্পায়ার আমি আপনের ঘাড়ে কামুড় দিয়া ব্যুফে চুক্তিতে আপনের রক্ত খামু তাইলেও এত ডরাইতাম না .

.

( ইহা স্রেফ একটি কাল্পনিক গল্প , সত্যের সাথে কোনো সম্পর্ক নাই , কারো সাথে মিলে গেলে তা কাকতাল মাত্র । এই গল্পটি অনেক বছর আগে আমার ফেসবুক ওয়ালে প্রকাশিত হয়েছিলো  , তখন কয়েকশত লোক এই লেখা কপি কইরা নিজের নামে চালাইছে  । )

নিচের বাটনগুলো দ্বারা শেয়ার করুন:

ফেইসবুকের মাধ্যমে কমেন্ট করুন

1
Leave a Reply

avatar
1 Comment threads
0 Thread replies
0 Followers
 
Most reacted comment
Hottest comment thread
0 Comment authors
Recent comment authors
  Subscribe  
newest oldest most voted
Notify of
trackback

[…] নিয়ে আরও একটি রঙ্গ পোস্ট দেখুন এখান ক্লিক করে এ বিষয়ে একটি ভিডিও – […]

ফেসবুকে লাইক দিন

ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

MD. Faijul Huq youtube subscribe

জনপ্রিয় পোস্টসমূহ

error: Content is protected !!
Dr. Md. Faijul Huq
Dr. Md. Faijul Huq